বঙ্গোপসাগরে তৈরি হচ্ছে নিম্নচাপ, বাড়তে পারে বৃষ্টিশাহজালাল বিমানবন্দরে স্বর্ণসহ যাত্রী আটকভারতকে নিষিদ্ধ করলো ফিফাসরকারের ঋণ বেড়েছে এক লাখ কোটি টাকার বেশি২৪ ঘণ্টায় একজনের মৃত্যু হয়েছে করোনায়
No icon

চার মাসে ইউক্রেনের কতটা রাশিয়ার দখলে

চার মাসের বেশি সময় আগে রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা শুরু করলে অনেকে মনে করেছিলেন, তিন-চার দিনেই প্রতিবেশী দেশটি দখল করে নিতে সক্ষম হবে মস্কো। বিপরীতে, হামলা শুরুর পরপরই নজিরবিহীন পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞায় রাশিয়া পর্যুদস্ত হয়ে পড়বে বলে ধারণা ছিল বেশিরভাগ মানুষের।বাস্তবে এর কোনোটাই ঘটেনি। বিশ্বের অন্যতম সামরিক শক্তি রাশিয়ার বিরুদ্ধে এখনও শির উঁচু করে লড়ছে সব দিক থেকে বহু পিছিয়ে থাকা ইউক্রেন।দেশটি দখল করে সেখানে পুতুল সরকার বসানোর টার্গেট ছিল রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভদ্মাদিমির পুতিনের। তিনি সেই আশা বহু আগেই ত্যাগ করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে পাশ্চাত্যের বিপুল অর্থ ও ব্যাপক অস্ত্র সহায়তার মাধ্যমে বীরবিক্রমে লড়াইয়ের মাধ্যমে ইউক্রেন পুতিনের লম্বা প্রত্যাশাকে দিন দিনই খাটো করে দিয়েছে। তবে পুতিনও খালি হাতে ফিরতে রাজি নন। তিনি সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্রের অংশ ইউক্রেনের কৌশলগত অংশ দখল করে নিতে মরিয়া।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে চলা যুদ্ধে রাশিয়া এখন পর্যন্ত তার টার্গেটের কাছাকাছিও পৌঁছাতে পারেনি। শুরুতে রাশিয়া রাজধানী কিয়েভসহ দেশজুড়ে হামলা চালালেও দ্রুতই বুঝতে পারে যে তার পরিকল্পনায় ত্রুটি আছে। এরপর দ্রুত সামরিক টার্গেট সংকীর্ণ করে ফেলে মস্কো। কিয়েভ ও খারকিভের মতো বড় বড় শহর দখলের সম্ভাবনা শূন্য দেখতে পেয়ে পুতিন পূর্বাঞ্চলীয় দোনবাস অঞ্চল দখলে সর্বশক্তি নিয়োগ করেন। এতে তিনি কিছুটা সাফল্যও পেয়েছেন।

রাশিয়ার বাহিনী প্রাথমিকভাবে দক্ষিণেও দ্রুত সাফল্য অর্জন করেছিল। তাদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল ক্রিমিয়া। এ অঞ্চলটি ২০১৪ সালে দখল করেছিল রাশিয়া। দোনেস্ক এবং লুহানস্কে রাশিয়া সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দখলে থাকা অঞ্চলগুলোর মধ্যে একটি স্থল করিডোর তৈরি করার চেষ্টায় আছে মস্কো। তাই দোনবাসেই এখন সবচেয়ে তীব্র যুদ্ধ চলছে।তবে রাশিয়ার অর্জনও কম নয়। এক মাস আগেই ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, ৬ লাখ বর্গকিলোমিটার আয়তনের ইউক্রেনের প্রায় ২০% ভূখ দখল করে নিয়েছে রাশিয়া। তবে এর মধ্যে ক্রিমিয়াও অন্তর্ভুক্ত।
প্রাণের মায়াকে তুচ্ছ করে অমিত সাহস দেখিয়ে বিশ্বের অনেকের কাছে বীরের মর্যাদায় আসীন জেলেনস্কি বলেছেন, শুধু কল্পনা করুন! ক্রমাগত লড়াই চলছে। যুদ্ধটা এক হাজার কিলোমিটারেরও বেশি এলাকাজুড়ে চলছে। তিনি জানান, পুতিনের বাহিনী ইউক্রেনের যত এলাকা নিয়ন্ত্রণ করছে তা প্রায় সমগ্র নেদারল্যান্ডসের সমান।