ফেসবুক-গুগল থেকে অর্থ আদায়ে প্রথম আইন পাস অস্ট্রেলিয়ায়জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষার সূচি ঘোষণাবিএনপির ৭ মার্চ পালনের সিদ্ধান্তকে স্বাগত ওবায়দুল কাদেরেরটিকা নেওয়ার পর মনে করবেন না সব সমাধান হয়ে গেছে’ বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
No icon

টিকা এলো, এবার বিতরণের পালা

ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় তার দেশ থেকে উপহার হিসেবে আসা ২০ লাখ ডোজ টিকা আনুষ্ঠানিকভাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের কাছে হস্তান্তর করেন। এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম উপস্থিত ছিলেন -করোনাভাইরাসের টিকা নিয়ে দেশবাসীর অপেক্ষার অবসান ঘটল। ভারত সরকারের উপহার হিসেবে পাঠানো অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা ২০ লাখ ডোজ গতকাল বৃহস্পতিবার বুঝে পেয়েছে সরকার। দুপুরে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় বাংলাদেশে ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের হাতে সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত টিকা আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করেন। করোনাভাইরাসের টিকা পাওয়া নিয়ে সব ধরনের অনিশ্চয়তা দূর হলো। এখন শুরু হবে টিকাদানের পালা। তবে টিকাদানের সঠিক দিনক্ষণ এখনও চূড়ান্ত হয়নি। তবে স্বাস্থ্য বিভাগের সূত্র বলছে, ভারত থেকে কেনা টিকার প্রথম চালানের ৫০ লাখ ডোজ আসার কথা রয়েছে আগামী সোমবার।

ওই টিকা আসার পর ২৭ অথবা ২৮ জানুয়ারি রাজধানী ঢাকার একটি করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে আনুষ্ঠানিকভাবে পর্যবেক্ষণমূলক টিকাদান শুরু হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি সেই অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। প্রথম দিন সরাসরি করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় যুক্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ২০ থেকে ২৫ জনকে টিকা দেওয়া হবে। এরপর আরও বড় পরিসরে টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল এবং বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে। সেখানে ৪০০ থেকে ৫০০ জনকে টিকা দিয়ে সাত দিন পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। এরপর গণটিকাদান শুরু হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন। প্রতিদিন দুই লাখ ডোজ করে প্রথম মাসে ৬০ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হবে।


পর্যবেক্ষণমূলক টিকাদানের ব্যাখ্যায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর অক্সফোর্ডের টিকার জরুরি ব্যবহারের অনুমতি দিলেও দেশে এই টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল হয়নি। এ কারণে গণটিকাদান শুরুর আগে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হচ্ছে। টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে সাফল্যের পর সরকার গণটিকাদান কার্যক্রম শুরু করতে চায়।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ডা. রওশন জাহান আক্তার আলো জানান, সর্বমোট ১৬৭ কার্টন টিকা এসেছে, যেখানে ২০ লাখ চার হাজার ডোজ টিকা আছে। প্রতি বক্সে আছে এক হাজার ২০০ ভায়াল টিকা। এক ভায়ালে ১০ জনকে টিকা দেওয়া যাবে।