ফ্রেশ কারখানায় আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৯ ইউনিটখুলনা ও বরিশাল বিভাগে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনা‘ঈদের আগে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলার অনুমতির সম্ভাবনা নেই’ডেনমার্কে শপিংমলে গুলি, কয়েকজন নিহতভোজ্যতেলে ভ্যাট সুবিধা আরও ৩ মাস
No icon

সাড়া মেলেনি তৃতীয় ডোজের টিকায়

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরাধে বুস্টার ডোজ সপ্তাহ শুক্রবার শেষ হয়েছে। তৃতীয় ডোজের এই গণটিকা কর্মসূচিতে মানুষের আগ্রহ ছিল কম। এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে দেশব্যাপী প্রায় দেড় কোটি ডোজ দেওয়ার লক্ষ্য থাকলেও ৩৬ লাখের মতো মানুষ টিকা নেননি। তবে স্বাস্থ্য বিভাগের দাবি টার্গেট পূরণ হয়েছে।বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংক্রমণ পরিস্থিতি কমে আসায় টিকা গ্রহণে সাধারণ মানুষের আগ্রহে ভাটা পড়েছে। এ কারণে আশানুরূপ সাড়া মেলেনি। পাশাপাশি বিশেষ ক্যাম্পেইনে স্বাস্থ্য বিভাগ ব্যর্থ হয়েছে।জানা গেছে, ৩১ মে বুস্টার সপ্তাহের কর্মপরিকল্পনা প্রকাশ করা হয়। সেখানে ৪ থেকে ১০ জুন পর্যন্ত দিনে অন্তত ২০ লাখ ডোজ প্রয়োগ লক্ষ্যমাত্রা ছিল। কিন্তু একদিনও সেই লক্ষ্য পূরণ হয়নি। প্রথম দিন শনিবার ১২ লাখ ৯ হাজার ৪৭৭ ডোজ দেওয়া হয়। এভাবে রোববার ১৬ লাখ ৫৯ হাজার ৭৯৯, সোমবার ১৭ লাখ ৯১ হাজার ৯৯৭, মঙ্গলবার ১৯ লাখ ৯৭ হাজার ৯৯৬, বুধবার ১৮ লাখ ১৭ হাজার ৩৮, বৃহস্পতিবার ১৮ লাখ ৯২ হাজার ৬৮৫ ও শুক্রবার ৪ লাখ ৬ হাজার ৬৫৭ ডোজ দেওয়া হয়। সবমিলে কর্মসূচিতে এক কোটি ৭ লাখ ৭৫ হাজার ৬১৯ জন তৃতীয় ডোজ নিয়েছেন। লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ৩৬ লাখ ২৪ হাজার ৩৮১ ডোজ ঘাটতি আছে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, করোনা সংক্রমণ এখন নিয়ন্ত্রণে। সংক্রমণের গতিকে থামাতে বড় ভূমিকা রেখেছে এই টিকা। এখনো বুস্টার ডোজ নেওয়ার উপযুক্ত প্রায় ৩ কোটি মানুষ অপেক্ষমাণ। গত সপ্তাহে স্বাস্থ্য বিভাগের লক্ষ্য ছিল এক কোটি ৪৪ লাখ ডোজ প্রদান। সেখানে এক কোটি ৭ লাখ ৭৫ হাজার ৬১৯ জনকে দেওয়া সম্ভব হয়েছে। অথচ আগের বিশেষ ক্যাম্পেইনে এক দিনে এক কোটি ডোজ দেওয়ার রেকর্ড রয়েছে। মূলত টিকা সম্পর্কে জনসাধরণের মধ্যে উৎসাহ তৈরি করতে না পারা, গুরুত্ব বোঝাতে ব্যর্থ হওয়া ও প্রচার-প্রচারণায় ব্যাপক ঘাটতি ছিল। ফলে লক্ষ্য অর্জিত হয়নি।তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা টিকা বিষয়ক ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব ডা. শামসুল হক দাবি করেন, এক কোটি ৪৪ লাখ ডোজ প্রয়োগের লক্ষ্যমাত্রা অন্যভাবে হিসাব করা। বেশি মানুষকে টিকার আওতায় আনা স্বাস্থ্য বিভাগের সব সময়ের টার্গেট। সে অনুযায়ী প্রয়োগ সম্ভব হয়েছে বলে মনে করি। এক সপ্তাহে এক কোটি ৭ লাখ দেওয়া হয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি।এ ধরনের ক্যাম্পেইন আরও হবে কিনা, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এখনই বলা যাবে না। যদি মানুষের টিকার প্রতি আগ্রহ বাড়ে, কেন্দ্রে আসে, খোঁজ খবর নিয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আরও প্রচারণা চালানো হবে। বুস্টার সপ্তাহ বিশ্লেষণ করে নতুন পরিকল্পনা গ্রহণে বৈঠক করা হবে।