হজে যেতে পাসপোর্টের মেয়াদ লাগবে ৪ জানুয়ারি পর্যন্তবঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের আয় ৩০০ কোটি টাকাএক সপ্তাহের ব্যবধানে টাকার মান আরও কমলবাড়ছে আমদানি পণ্যের দাম, সঙ্গে দেশি পণ্যেরওবিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যু কমেছে
No icon

শ্রীলংকায় রাজধানী ছাড়ছেন শঙ্কিতরা

ক্ষোভের অনলে পুড়ছে দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপ রাষ্ট্র শ্রীলংকা। অর্থনৈতিক সংকটের পরিপ্রেক্ষিতে রাজনীতিক অস্থিরতায় লংকানরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ, কারফিউ, সেনা নামিয়েও ক্ষোভের আগুন নেভানো যাচ্ছে না। এমন প্রেক্ষাপটে শত শত লোক রাজধানী ছেড়ে গ্রামে পাড়ি জমাচ্ছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার বলা হয়, যাত্রী বোঝাই বাসে বহু লোককে কলম্বো ছাড়তে দেখা গেছে।খবরে বলা হয়, ক্ষুব্ধ জনতাকে নিয়ন্ত্রণ করতে জারি করা কারফিউ গতকাল সকাল সাতটায় তুলে নেওয়া হয়। তবে গতকালই দুপুর দুইটায় আবারও কারফিউ জারি করা হয়। সকালে কারফিউ তোলার পরই শহর ছাড়া মানুষের ঢল নামে বাসস্টেশনে। বেলা গড়াতে গড়াতে মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। রয়টার্স বলছে, সহিংসতা থেকে বাঁচতে রাজধানী কলম্বোর বাসিন্দারা তাদের গ্রাম বা নিজ শহরে ছুটতে শুরু করেছেন।

টানা রাজনৈতিক অস্থিরতার জেরে গত সোমবার পদত্যাগ করেন প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসে। এর পর থেকে সহিংস বিক্ষোভে ৯ জন নিহত হয়েছেন এবং তিন শতাধিক লোক আহত হয়েছে। যদিও তার ছোট ভাই গোতাবায়া রাজাপাকসে এখনো প্রেসিডেন্ট পদে বহাল আছেন। তার পদত্যাগের দাবিতেও আন্দোলন চলছে। এর মধ্যেই গত বুধবার তিনি নৈরাজ্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর হুশিয়ারি ব্যক্ত করেন। একই সঙ্গে তিনি ঐক্যবদ্ধ সরকার গঠনের প্রতিশ্রুতি দেন। এ প্রেক্ষাপটে দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন।