গাজীপুরে টেক্সটাইল মিলের গুদামে আগুন,আরও একটি উপশহর করতে যাচ্ছে রাজউকসোনালী ব্যাংকের খেলাপি ঋণ যথেষ্ট উদ্বেগজনকব্রাজিলের ঐতিহাসিক জয়ে টিএসসিতে সমর্থকদের উল্লাসকুমিল্লার ৫ ইউপিতে ভোটগ্রহণ চলছে
No icon

ফ্রান্সে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপিত

যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসব মুখর পরিবেশে ফ্রান্সের প্যারিসে ৫১তম সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপন করেছে। এই উপলক্ষে প্যারিসের হোটেল প্যাভিও রয়েলে বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রতিরক্ষা বিভাগের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।অনুষ্ঠানে ফ্রান্স প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ, ফ্রান্সে নিযুক্ত বিভিন্ন বন্ধু প্রতীম দেশের রাষ্ট্রদূত ও প্রতিরক্ষা উপদেষ্টাগণ, ফ্রান্সের বিভিন্ন সামরিক সরঞ্জাম প্রস্তুতকারী ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, ফ্রান্সে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি বীর মুক্তিযোদ্ধা, রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী মহলের প্রতিনিধিবৃন্দ এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকসহ শতাধিক আমন্ত্রিত অতিথি উপস্থিত ছিলেন ।বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত খন্দকার এম তালহা এবং প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মিজানুর রহমান, এনডিসি সকল অতিথিবৃন্দকে অভ্যর্থনা জানান।

অনুষ্ঠানের শুরুতে ফ্রান্স ও বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশিত হয়। এরপর সশস্ত্র বাহিনী দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরতে স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সক্রিয় অংশগ্রহণ, স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী গঠন, উন্নয়ন, দেশ ও বিদেশে সশস্ত্রবাহিনীর উল্লেখযোগ্য কার্যক্রম সম্বলিত একটি তথ্যবহুল ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত এবং প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন।প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে দিবসটির মাহাত্ম ও তাৎপর্য উল্লেখপূর্বক বর্তমান গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সার্বিক পরিকল্পনা ও পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর ধারাবাহিক ও উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন এবং দেশ ও বহির্বিশ্বে সশস্ত্র বাহিনীর কার্যক্রমের উপর আলোকপাত করেন।তিনি বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সাথে ফ্রান্সসহ অন্যান্য সকল বন্ধু প্রতীম রাষ্ট্রের সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যকার বর্তমান সুসম্পর্ক, আন্তঃযোগাযোগ ও পারস্পরিক সহযোগিতার জন্য উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এবং ভবিষ্যতে পারস্পরিক বন্ধুত্ব ও অগ্রগতির এই ধারাকে অব্যাহত রেখে উত্তরোত্তর উন্নয়নের জন্য সকলের ঐকান্তিক সহযোগিতা কামনা করেন।