কক্সবাজারে ফ্লাই ডাইনিং নামে একটি ঝুলন্ত রেস্টুরেন্টের যাত্রা শুরুমহামারীকালে বিশ্বে এইডস রোগীর সংখ্যা বেড়েছে১৭১০ জনকে নিতে ৪৪তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশডিসেম্বর বাঙালির আনন্দ-গৌরবের মাসশারীরিক উপস্থিতিতে শুরু আপিল বিভাগের বিচারকাজ
No icon

টিকা নিবন্ধন জটিলতায় শিক্ষার্থীরা

কভিড-১৯-এর টিকা পেতে সুরক্ষা অ্যাপে তথ্য নিবন্ধন করতে গিয়ে সমস্যায় পড়ছে রাজধানীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। সবচেয়ে বেশি জটিলতা হচ্ছে ১৬ ডিজিটের পুরোনো জন্মনিবন্ধন সনদধারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে। কারণ বর্তমানে জন্মনিবন্ধন সনদ ১৭ ডিজিটের। তাই আইসিটি বিভাগের সুরক্ষা অ্যাপসে নিবন্ধন করতে গিয়ে ১৬ ডিজিটের জন্মনিবন্ধন নম্বর দিলে আরও একটি সংখ্যা চাওয়া হচ্ছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানরা বিষয়টি মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরকে (মাউশি) জানিয়েছেন।মাউশির মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক বলেন, পুরোনো জন্মনিবন্ধনধারী শিক্ষার্থীদের টিকা নিবন্ধনে ভোগান্তির কথা জানতে পেরেছি। এ বিষয়ে আজই স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ ও আইসিটি বিভাগকে মাউশি থেকে চিঠি দিয়ে ১৬ ডিজিটের জন্মনিবন্ধনের তথ্যাবলিও রেজিস্ট্রেশন সফটওয়্যারের সিস্টেমে অন্তর্ভুক্ত করতে অনুরোধ জানিয়েছি। আশা করছি, এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।রাজধানীর শেরেবাংলা নগর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী আনিকা তাবাসসুম পুরোনো জন্মনিবন্ধন সনদ দিয়ে চেষ্টা করেও টিকার নিবন্ধন গত বুধ ও বৃহস্পতিবার করাতে পারেনি। তার সহপাঠীরা মিরপুর-১৩ নম্বরে স্কলাসটিকায় টিকা নিচ্ছে। একইভাবে উত্তরার উত্তরখান কলেজিয়েট স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র দীপ্র হাসানও টিকার নিবন্ধন করতে পারেনি। তার কলেজের স্টাফ নিবন্ধন করতে ব্যর্থ হলে দুজন শিক্ষক দায়িত্ব নেন। তারাও ব্যর্থ হয়েছেন।


অফিস অব রেজিস্ট্রার জেনারেল কার্যালয় বর্তমানে কোনো শিশুর জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে জন্মনিবন্ধন সম্পন্ন করছে। আর যারা ১৮ বছরের ওপরে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) আছে। এই দুই স্তরে পরিচয় ও শনাক্তের ব্যবস্থা আছে। কিন্তু আগে অভিভাবকরা নিজ গ্রামের স্থানীয় ইউপি কার্যালয় থেকে সন্তানের যে জন্মসনদ নিতেন, তা হাতে লিখে দেওয়া হতো। আবার গ্রামগঞ্জের বহু অভিভাবকই সন্তানের জন্মনিবন্ধন আগে করাননি। কেউ কেউ শহরে সন্তানকে স্কুলে ভর্তি করানোর সময় হাতে লেখা ১৬ ডিজিটের জন্মসনদই জমা দিয়েছিলেন। বর্তমানে টিকার প্রয়োজনে ডিজিটাল জন্মনিবন্ধন করতে গিয়ে তারা জেনেছেন, কোনো শিশুর জন্মনিবন্ধন করতে হলে আগে তার বাবা-মায়ের জন্মনিবন্ধন করাতে হবে। তিনটি জন্মনিবন্ধন করতে গিয়ে অভিভাবকদের বাড়তি অর্থ ব্যয় হচ্ছে। আবার অনেক অভিভাবক আগে জন্মনিবন্ধন করিয়ে থাকলেও হয়তো নানা তথ্যে ভুল রয়ে গিয়েছিল। তাদেরও আবার অতিরিক্ত অর্থ ও সময় ব্যয় করে জন্মনিবন্ধন করতে হয়েছে বা হচ্ছে। সব মিলিয়ে নানা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে তাদের।


এসব সমস্যার বিষয়ে ঢাকা জেলা শিক্ষা অফিসার আবদুল মজিদ গতকাল রোববার বলেন, কয়েকটি কারণে টিকার নিবন্ধনে কিছু সমস্যা হচ্ছিল। পুরোনো জন্মনিবন্ধন সনদের তথ্য সিস্টেমে অন্তর্ভুক্ত করতে মাউশি চিঠি দিয়েছে। কারণ জন্মনিবন্ধনের তথ্য আগে থেকে এন্ট্রি না থাকলে ম্যাচ করে না। আর সুরক্ষা অ্যাপসে নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ডাটা আপ করতে গিয়ে শিক্ষকরা কিছু ভুল করেছেন। তারা অনেকে এক্সেল শিটে কাজ করতে এক্সপার্ট নন, সাধারণ ওয়ার্ডে কাজ করতে অভ্যস্ত। স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে দেওয়া এক্সেল শিটে ফরম্যাট করে দেওয়াই ছিল। অনেক শিক্ষক না বুঝে ফরম্যাট ভেঙেছেন। যে কারণে তারা আর তথ্য অন্তর্ভুক্ত করতে পারেননি।প্রসঙ্গত, যে আটটি কেন্দ্রে একযোগে টিকাদান কার্যক্রম চলছে সেগুলো হলো- মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, হার্ডকো ইন্টারন্যাশনাল স্কুল (ভাটারা), সাউথ পয়েন্ট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ (মালিবাগ), চিটাগং গ্রামার স্কুল (বনানী), কাকলি হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ (ধানমন্ডি), ঢাকা কমার্স কলেজ (চিড়িয়াখানা রোড), স্কলাসস্টিকা (মিরপুর-১৩) ও সাউথ ব্রিজ স্কুল (উত্তরা)।আরও যত সমস্যা : অব্যবস্থাপনার কারণে টিকাদান কেন্দ্রগুলোয় জটলা সৃষ্টি হচ্ছে ও স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হচ্ছে। কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যাওয়া অভিভাবকদের বসার কোনো ব্যবস্থাই রাখা হয়নি। করোনা ঝুঁকি নিয়ে স্কুল গেটেই থাকতে হচ্ছে তাদের। গত বুধ ও বৃহস্পতিবার ধানমন্ডির কাকলি হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজে টিকাদান শুরুর কিছুক্ষণ পর কার্ড স্ক্যানিং মেশিনে কারিগরি ত্রুটি দেখা দেয়। ফলে শিক্ষার্থীদের কেন্দ্রের ভেতরে পাঠিয়ে অভিভাবকদের রোদে ঠাঁই দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে হয়েছে।