২৪ ঘণ্টা নজরদারির আওতায় ফেসবুক, ইউটিউবজাতিসংঘ মহাসচিবকে চিঠি দিয়ে যা বলল তালেবান৫ অক্টোবরই খুলছে ঢাবির হল১২-১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু
No icon

যেভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি করে হ্যাকাররা

২০১৬ সালে উত্তর কোরিয়ার হ্যাকাররা বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে এক বিলিয়ন ডলার হ্যাক করার পরিকল্পনা করে এবং এ কাজে প্রায় সফল হতে চলেছিল। কিন্তু ভাগ্যক্রমে ৮১ মিলিয়ন ডলার ছাড়া বাকি অর্থের ট্রান্সফার আটকে যায়। কিন্তু কীভাবে বিশ্বের বিচ্ছিন্ন এবং দরিদ্র একটি দেশ এই রকম বড় আকারের সাইবার হ্যাকিং দল তৈরি করল?পুরো বিষয়টি শুরু হয়েছিল একটি ত্রুটিপূর্ণ প্রিন্টারের মাধ্যমে। আধুনিক জীবনে এরকমটা প্রায়ই ঘটে থাকে, তাই বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মীরা এটাকে অন্যসব দিনের মতো সাধারণ একটি সমস্যা হিসেবে ধরে নিয়েছিলেন। তাদের কাছে এটা বড় কোন বিষয় মনে হয়নি। কিন্তু এটা আসলে শুধুমাত্র প্রিন্টারের একটা সমস্যা ছিল না, আর ব্যাংকটাও সাধারণ কোন ব্যাংক নয়।

বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ;বাংলাদেশ ব্যাংক দেশের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ দেখভালের দায়িত্ব পালন করে।সেখানে প্রিন্টারের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের দশম তলার অত্যন্ত নিরাপদ একটি রুমে এই প্রিন্টারের অবস্থান। এই প্রিন্টারের মাধ্যমে ব্যাংক থেকে যাওয়া বা আসা কোটি কোটি ডলার লেনদেনের তথ্য প্রিন্ট করা হয়।২০১৬ সালের পাঁচই ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার সকাল পৌনে নয়টা নাগাদ যখন ব্যাংকের কর্মীরা দেখতে পেলেন যে, প্রিন্টারটি কাজ করছে না, আমরা ধরে নিলাম, এটা অন্যসব দিনের মতো সাধারণ একটি সমস্যা, ব্যাংকের ডিউটি ম্যানেজার জুবায়ের বিন হুদা পরবর্তীতে পুলিশকে বলেছেন। এ ধরনের সমস্যা এর আগেও হয়েছে।

এটা ছিল বাংলাদেশ ব্যাংকের সমস্যার শুরু। হ্যাকাররা এর মধ্যেই ব্যাংকের কম্পিউটার নেটওয়ার্ক ভেঙ্গে প্রবেশ করেছে এবং সেই মুহূর্তে তারা সবচেয়ে দুঃসাহসী সাইবার হামলা শুরু করেছে। তাদের লক্ষ্য: একশো কোটি ডলার চুরি করা।টাকা সরিয়ে নেয়ার জন্য এই সাইবার হ্যাকিং গ্রুপ ভুয়া ব্যাংক একাউন্ট, দাতব্য সংস্থা, ক্যাসিনো এবং সহযোগীদের একটি বিস্তৃত নেটওয়ার্ক ব্যবহার করেছে।